লার্স ভন ট্রায়ার একজন ড্যানিশ চলচ্চিত্র পরিচালক যিনি এখন পর্যন্ত বিশ্বের বিভিন্ন নামীদামী আ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে প্রায় ২০০টি মনোনয়ন এবং ১০০টির বেশি পুরষ্কার পেয়েছেন। মুভিতে অতিরিক্ত সহিংসতা এবং হিংস্রতার জন্য তিনি একই সাথে আলোচিত এবং সমালোচিত। ইউরোপের ব্যাড বয় হিসেবে খ্যাত এই পরিচালক এখন পর্যন্ত কম ঝামেলায় জড়াননি। তবে দীর্ঘদিন মাদকের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের পর এ পরিচালক নতুনভাবে ফিরেছেন ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে।

সিরিয়াল কিলার জ্যাকরূপে অভিনেতা ম্যাট ডিলন; Source: thrillist.com

৮০’র দশকের হলিউডের চকোলেট বয় ম্যাট ডিলনকে মূল চরিত্রে রেখে তিনি তৈরি করেছেন দ্য হাউজ দ্যাট জ্যাক বিল্ট (The House that Jack Built)। মুভিটিতে ডিলন এক সিরিয়াল কিলারের চরিত্রে অভিনয় করেছেন যে কিনা অত্যন্ত নির্দয়ভাবে মানুষকে হত্যা করে থাকে। তার ১২ বছরের সিরিয়াল কিলিং জীবনের পাঁচটি ঘটনা পাঁচটি অধ্যায় হিসেবে তিনি তুলে ধরেন। চলুন জেনে নেওয়া যাক মুভিটির ভালোমন্দ বিভিন্ন দিক।

কাহিনী সংক্ষেপ

দ্য হাউজ দ্যাট জ্যাক বিল্ট মুভিটির কাহিনী শুরু হয় জ্যাক নামক এক সিরিয়াল কিলারের বর্ণনার মাধ্যমে। সে তার সিরিয়াল কিলিং জীবনের শুরু এবং এর বিভিন্ন উল্লেখযোগ্য ঘটনার বিবরণ দিতে থাকে। তার এ গল্পের শুরু হয় তার প্রথম হত্যার বিবরণের মাধ্যমে।

অবসেসিভ কম্পালসিভ ডিজঅর্ডারে (Obesessive Compulsive Disorder) ভোগা এবং শুচিবায়ুর বাতিকসম্পন্ন জ্যাকের কাছে একদিন এক নারী সাহায্য চায় যে কিনা তার গাড়ি নষ্ট হয়ে যাওয়ার কারণে আটকা পড়েছিল। তবে মহিলাটি তাকে বারবার সিরিয়াল কিলার বলে তিরষ্কার করছিল এবং এক পর্যায়ে অনেকটা দুর্ঘটনাবশতই জ্যাক তাকে খুন করে বসে। সেই থেকে শুরু তারপর কম মানুষ শিকার হয়নি জ্যাকের ক্রোধের।

মুভিটির শুরুর দিকের একটি দৃশ্য; Source: indiewire.com

প্রায় ৬০ জন মানুষ হত্যাকারী জ্যাক একের পর এক বিবরণ দিতে থাকে তার করা বিভিন্ন হত্যা এবং অন্যান্য অপরাধের। মুভিটিতে দেখা যায়, সে ভার্জ নামক এক রহস্যময় বৃদ্ধের কাছে তার জীবনের এ সকল গল্প অত্যন্ত গর্ব সহকারে বলতে থাকে।

জ্যাক এবং ভার্জ; Source: slashfilm.com

নিজ কৃতকর্মের জন্য কোনোপ্রকার অনুশোচনা তো নয়ই বরং উল্টো খানিকটা আত্মতুষ্টিতে ভোগা জ্যাক নিজেকে একজন শিল্পী এবং আর্কিটেক্ট দাবী করে। মুভিতে দেখা যায়, সে অচেনা মানুষদের হত্যা করে তাদের একটি কোল্ড স্টোরেজে রেখে দেয় এবং তাদের বিভিন্নভাবে ছবি তোলার উপাদান হিসেবে সে ব্যবহার করে। সে নিজেকে মিস্টার সফিস্টিকেশন নাম দেয় এবং পত্র পত্রিকায় তার তোলা লাশের ছবিগুলো পাঠিয়ে ত্রাস বিস্তার করতে থাকে। এভাবে ধীরে ধীরে মুভিটিতে জ্যাকের ভয়াবহতা ফুটে উঠতে থাকে এবং ঘটনাপ্রবাহ এগিয়ে যেতে থাকে।

মুভিটির নির্মাণ এবং কান ফিল্ম ফেস্টিভালে প্রদর্শনী

দ্য হাউজ দ্যাট জ্যাক বিল্ট মুভিটির পরিচালনা এবং চিত্রনাট্যের দায়িত্বে ছিলেন লার্স ভন ট্রায়ার। ড্যানিশ এ পরিচালক তার মুভি নির্মাণের বিশেষ ধরনের জন্য একই সাথে আলোচিত এবং সমালোচিত। তবে লার্স ভন ট্রায়ারের নাম নিলে একই সাথে উঠে আসবে কান ফিল্ম ফেস্টিভালের কথা। কারণ এ পরিচালকের উত্থান পতন উভয়ের সাথেই এ ফেস্টিভালটি সংযুক্ত এমনকি তার এ মুভিটির সাথেও।

১৯৯১ সাল থেকে প্রতিনিয়ত কান ফিল্ম ফেস্টিভালে একাধিক মনোনয়ন পাওয়া লার্স ২০০০ সালে ডান্সার ইন দ্য ডার্ক মুভিটির জন্য কান ফেস্টিভালের সর্বোচ্চ পুরষ্কার পাল্মে ডি’অর জিতে নেন। তারপরও প্রতিনিয়ত কান ফেস্টিভালে আসা ট্রায়ার ২০১১ সালে তার আ্যান্টিক্রাইস্ট (Antichrist) মুভিটি নিয়ে ফেস্টিভালে সমালোচকদের মাঝে দ্বিমত দেখা দেয়। এরই মাঝে লার্স ভন ট্রায়ার কিছু বেফাঁস মন্তব্য করে বসেন যার ফলে তাকে কান ফেস্টিভাল থেকে নিষিদ্ধ করা হয়। মূলত মুভিটির আনসেন্সর্ড ভায়োলেন্স (Uncensored Violence) এবং বিকৃত দৃশ্যের কারণেই এ ঘটনার সূত্রপাত ঘটে।

কান ফেস্টিভালে লার্স ভন ট্রায়ার (মাঝে) এবং মুভির কলাকুশলীরা; Source: tumblr.com

২০১৮ সালে দীর্ঘ ৭ বছর পর ট্রায়ার কান ফেস্টিভালে ফিরে আসেন তার দ্য হাউজ দ্যাট জ্যাক বিল্ট মুভিটি নিয়ে। কিন্তু এবারো তিনি কোনো অংশে কম যাননি। কান ফেস্টিভালে মুভিটির প্রিমিয়ার শো থেকে প্রায় ১০০ জনের মতো দর্শক প্রথমার্ধ শেষ হতে না হতেই বেরিয়ে যান। তাদের মতে, মুভিটিতে অতিরিক্ত সহিংসতা এবং মানুষ হত্যার দৃশ্য ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র বিবরণ সহ দেখানো হয়েছে যা তারা মেনে নিতে পারছিলেন না।

এবার আসা যাক চিত্রনাট্যের ব্যাপারে। এক্ষেত্রেও লার্স ভন ট্রায়ার নিজেই পুরো কাজ করেছেন। চিত্রনাট্য কিছুটা ধীরগতির। তবে পুরো ঘটনা বেশ শিহরণ জাগানোর মতো। একজন সিরিয়াল কিলারের মানসিকতা তিনি পরিপূর্ণভাবে তুলে ধরতে সক্ষম হয়েছে, যদিও মুভিতে অতিরিক্ত সহিংসতা এবং ক্রূরতা দেখানো হয়েছে যার কোনো প্রয়োজন ছিল না। এছাড়া মুভিটির শেষ দৃশ্য তিনি ইচ্ছা করেই কিছুটা ধোঁয়াশার মধ্যে রেখেছেন। শেষ অংশটুকু মুভি থেকে বাদ দিলেও মুভির মূল গল্পে কোনো প্রভাব পড়তো না।

অভিনয় এবং রেটিং

মুভিটিতে মূলত একটি চরিত্রই প্রায় পুরো সময় জুড়ে দেখানো হয়েছে যা কিনা ম্যাট ডিলনের জ্যাক চরিত্রটি। বিশালদেহী ম্যাট ডিলন বেশ ভালোই চেষ্টা করেছেন একজন সিরিয়াল কিলার চরিত্রে অভিনয়ের জন্য তবে মুভিটির নারী এবং শিশু হত্যায় পরিপূর্ণ নির্মম চিত্রনাট্য তার অভিনয় অনেকটাই গৌণ পর্যায়ে নিয়ে যায়। এছাড়া পার্শ্ব চরিত্রে উমা থারমান সহ বেশ কিছু চরিত্র থাকলেও তাদের কারোই পর্দায় উল্লেখযোগ্য সময়ের জন্য উপস্থিতি ছিল না।

মুভিটির একটির একটি দৃশ্যে জ্যাক এবং তার সিরিয়াল কিলিং এর শিকারদের একজন; Source: verge.com

মুভিটির ব্যাপারে দর্শক সমালোচকদের মিশ্র প্রতিক্রিয়া রয়েছে। অনেকে মুভিতে অধিক সহিংসতার ব্যাপারটা ভন ট্রায়ারের বাড়াবাড়ি হিসেবে নিয়েছেন এবং একারণেই তাদের কাছে মুভিটি ভালো লাগেনি। কেউ কেউ আবার মুভিটিকে ‘পারফেক্ট সিরিয়াল কিলার মুভি’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। এসব কারণেই মুভিটি আইএমডিবিতে ৭ রেটিং নিয়ে মাঝামাঝি একটি অবস্থানে আছে বলা যায়। রটেন টমেটোতে মুভিটিকে ৬০ শতাংশ ফ্রেশ বলা হয়েছে। তবে রোলিং স্টোন মুভিটিকে ৫ স্টারের ভিতরে মাত্র ১ স্টার দিয়েছে।

মুভিটি কেন দেখবেন

আপনি যদি দুর্বল চিত্তের অধিকারী হয়ে থাকেন বা রক্তপাত সহ্য করতে পারেন না তবে আপনার এ মুভিটি না দেখা ভালো। আড়াই ঘন্টাব্যাপী এ মুভিটি অনেকের কাছে ধীর মনে হতে পারে। তবে কারো যদি এ ধরনের মুভি দেখতে ভালো লাগে এবং সহিংসতা সহ্য করতে পারেন তবে এ মুভিটি আপনার ভালো লাগবে বলে আশা করা যায়।

Related Article

0 Comments

Leave a Comment