ক্রাইম থ্রিলার মুভির কদর বিশ্বজুড়ে সকল ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে বিদ্যমান। এ ধরণের গল্পে একটি সমস্যা দেখা যায় আর তা হলো নতুনত্বের অভাব। এর ফলশ্রুতিতে বিশ্বের প্রায় সব ইন্ডাস্ট্রিতে তৈরি হয় বিখ্যাত বিভিন্ন ছবির রিমেক। এক দেশের ইন্ডাস্ট্রির ফিল্ম আরেক দেশে রিমেক করা আজকাল নিত্য নৈমিত্তিক ব্যাপার। তবে বেশিরভাগ সময়েই দেখা যায় যে রিমেক সিনেমাগুলো পূর্বসূরিদের তুলনায় সুবিধা করে উঠতে পারে না। তবে এর ব্যতিক্রমও রয়েছে। এমনই একটি মুভির নাম ২০০৬ সালে হলিউডে মুক্তিপ্রাপ্ত মুভি দ্য ডিপার্টেড

দ্য ডিপার্টেড ছবিটি ২০০২ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত হংকংয়ের মুভি ইন্টারনাল আ্যাফেয়ার্সের একটি রিমেক। কিন্ত মুভিটিকে মূল ছবির চেয়ে আলাদা এবং অনন্য হিসেবে তুলে ধরতে যার অবদান সবচেয়ে বেশি তিনি হলেন মুভিটির পরিচালক মার্টিন স্কোরসিস

বিশ্বখ্যাত এ পরিচালকের সেরা কাজের মধ্যে একটি হিসেবে বিবেচনা করা হয় দ্য ডিপার্টেড মুভিটিকে। এর পিছনে তিনি ছাড়াও কারণ হিসেবে রয়েছেন হলিউডের বেশ কিছু সুপারস্টার যারা কিনা জাঁদরেল অভিনেতা হিসেবে বিশ্বব্যাপী সুপ্রতিষ্ঠিত। জ্যাক নিকলসন, লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও, মার্ক ওয়ালবার্গ, ম্যাট ডেমনের মত নামীদামি অভিনেতারা কেবলমাত্র তাদের অভিনয়ের গুণে ছবিটিতে বাজিমাত করেছেন। তবে চলুন জেনে আসা যাক এ মুভিটি সম্পর্কে

কাহিনীসংক্ষেপ

দ্য ডিপার্টেড মুভির পটভূমি আমেরিকার ম্যাসাচুসেটস স্টেটের বোস্টন শহর। পূর্বে চার্চের পাদ্রী থেকে পরবর্তীতে আইরিশ মাফিয়া বসে রুপান্তরিত ফ্রান্সিস কস্টেলো (জ্যাক নিকলসন) কলিন সুলিভান (ম্যাট ডেমন) নামক এক কিশোরকে অপরাধ জগতে নিয়ে আসেন নিজের হয়ে কাজ করার জন্য। তাকে ধীরে ধীরে বড় করে তুলতে থাকেন নিজের গুপ্তচর হিসেবে গড়ে তোলার জন্য।

কলিন সুলিভান চরিত্রে ম্যাট ডেমন; Source: pinterest.com

তাকে ম্যাসাচুসেটস পুলিশ বাহিনীতে পাঠিয়ে পুরোদস্তর পুলিশ হিসেবে গড়ে তুলতে থাকেন পুলিশের অভ্যন্তরীণ সব বিষয় নিজের নখদর্পণে রাখার জন্য।সুলিভান পুলিশ হিসেবে এতটাই দক্ষ হয়ে উঠে যে তাকে পুলিশ বাহিনীর স্পেশাল ইউনিটের সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়,যদিও সে গোপনে কস্টেলোর জন্যই কাজ করছিল।

অপরদিকে, ম্যাসাচুসেটস পুলিশের দুই অফিসার ক্যাপ্টেন অলিভার কুইনান (মার্টিন শীন) এবং স্টাফ সার্জেন্ট শন ডিগনাম (মার্ক ওয়ালবার্গ) এক অভিনব প্রক্রিয়া বের করেন। তারা শহরের অপরাধ দমনের জন্য, পুলিশ ডিপার্টমেন্ট এবং মাফিয়া বসদের চোখ ফাঁকি দিয়ে আন্ডারওয়ার্ল্ডে নিজেদের একজনকে গুপ্তচর হিসেবে পাঠান।

বিলি কস্টিগান এবং ফ্র্যাংক কস্টেলো চরিত্রে লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও এবং জ্যাক নিকলসন; Source: theverge.com

পুলিশ একাডেমি থেকে গ্র‍্যাজুয়েট হবার পূর্বেই তারা দুজন ক্যাডেট বিলি কস্টিগানকে (লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও) নিজেদের গুপ্তচর এবং পুলিশের আন্ডারকভার এজেন্ট হিসেবে কাজ করার প্রস্তাব দেন। অপরাধ জগতের সাথে কস্টিগানের পরিবারের যোগাযোগ থাকায় এ কাজে জড়ানো তার জন্য বেশ সুবিধাজনক হয়। তাই বিলি কস্টিগান পুলিশ একাডেমি ছেড়ে দেয় এবং কুইনানের গুপ্তচর হিসেবে ফ্র‍্যাংক কস্টেলোর গ্যাংয়ে যোগ দেয়। এর পূর্বে যাতে কোনোপ্রকার সন্দেহের অবকাশ না থাকে এজন্য সে মিথ্যা অভিযোগে স্বেচ্ছায় কিছুদিন কারাগারেও থেকে নেয়। এছাড়া তার আসল পরিচয়ের কথা একমাত্র ক্যাপ্টেন কুইনান আর সার্জেন্ট ডিগনাম বাদে বাকি সবার কাছেই গোপন রাখা হয়।

কুইনান এবং ডিগনামের মুখোমুখি ফ্র্যাংক কস্টেলো; Source: twitter.com

এভাবে অপরাধী এবং পুলিশ উভয় বাহিনীতে দুই গুপ্তচর কাজ করে যেতে থাকে কোনো প্রকার সন্দেহের উদ্রেক ঘটানো ছাড়া। তবে ফ্র‍্যাংক কস্টেলোকে পাকড়াও করার একটি স্টিং অপারেশন ব্যর্থ হবার পর দুই গুপ্তচরই টের পায় একে অপরের অস্তিত্ব সম্পর্কে। এর উপর আবার দুজনের সাথেই কোনো না কোনো সময়ে প্রণয়ের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়তে দেখা যায় পুলিশ মনোবিজ্ঞানী ম্যাডোলিন ম্যাডেনকে। ধীরে ধীরে জমে উঠতে থাকে দুজনের দ্বন্দ্ব। শেষ পর্যন্ত এ পুলিশরূপী চোর এবং চোররূপী পুলিশের চোর-পুলিশ খেলা কোথায় গিয়ে দাঁড়ায় তা জানতে হলে আপনাকে মুভিটিতে শেষ দৃশ্য পর্যন্ত মজে থাকতে হবে।

নির্মাণ,অভিনয় এবং অস্কারজয়

দ্য ডিপার্টেড মুভিটি পরিচালনার দায়িত্বে থাকা মার্টিন স্কোরসিস হলিউডের অন্যতম সফল পরিচালক এবং এ মুভিটি তার অন্যতম সেরা কাজের একটি। যার যথার্থ সন্মাননা তিনি পেয়েছেন এ মুভিটির জন্য সেরা পরিচালক হিসেবে অস্কার পেয়ে। মার্টিন স্কোরসিস ইতোপূর্বে আরো ছয়বার অস্কারের জন্য মনোনয়ন হয়ে ব্যর্থ হলেও এ মুভিটির জন্য মনোনীত হয়ে সপ্তমবারের মাথায় তিনি সেরা পরিচালকের পুরষ্কার অর্জন করতে সক্ষম হন।

লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও এবং মার্টিন স্কোরসিস; Source: pinterest.com

মুভিটি অন্য একটি মুভির রিমেক হলেও চিত্রনাট্যের বেশ কিছু উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন মুভিটিতে নতুন মাত্রা যোগ করেছে। তাই মুভিটির চিত্রনাট্যকার উইলিয়াম মোনাহান সেরা স্বাঙ্গীকৃত চিত্রনাট্যকারের পুরষ্কার জিতে নেন।

অভিনয়ের দিক থেকেও মুভিটিতে কোনো ধরণের কমতি ছিল না। মুভিটির মূল দুই চরিত্রে ম্যাট ডেমন এবং লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও নিজেদের অভিনয়ের সেরাটুকু দিয়েছেন। এছাড়া আরেক হলিউড হিরো মার্ক ওয়ালবার্গ পার্শ্ব চরিত্রে অভিনয় করলেও তার উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মত। সার্জেন্ট ডিগনাম চরিত্রটির জন্য তাই তিনি সেরা পার্শ্ব অভিনেতা হিসেবে অস্কারে মনোনয়নও পান।

সার্জেন্ট ডিগনাম চরিত্রে মার্ক ওয়ালবার্গ; Source: zimbio.com

মুভিটি সে বছর সেরা পরিচালক এবং সেরা চিত্রনাট্যের পাশাপাশি সেরা চলচ্চিত্র এবং সেরা ফিল্ম এডিটিং মিলিয়ে সর্বমোট চারটি অস্কার জিতে নেয়।

মুভিটি যে কারণে দেখবেন

একটি মুভির মূল প্রাণ তার গল্প। আর আপনি যদি একটি টান টান উত্তেজনাপূর্ণ গল্পওয়ালা ক্রাইম থ্রিলার মুভিটি দেখতে চান তবে দ্য ডিপার্টেড মুভিটি আপনাকে হতাশ করবে না। মুভিটিতে বর্তমান সময়ের থ্রিলারগুলোর মত অর্থহীন মারামারির দৃশ্যের আধিক্য নেই, তবে পর্যাপ্ত পরিমাণে গোলাগুলি এবং ভায়োলেন্সের দৃশ্য রয়েছে যা কিনা গল্পের প্রয়োজনেই দেখানো হয়েছে। অসাধারণ গল্পের পাশাপাশি দারূণ অভিনয়ের সংমিশ্রণে দ্য ডিপার্টেড হয়ে উঠেছে অবশ্যই উপভোগ করার মত একটি হলিউড মুভি।

Related Article

0 Comments

Leave a Comment