টেলিভিশনের জগতে প্রতিনিয়তই কিছু না কিছু নতুনত্ব নিয়ে আসছে নেটফ্লিক্স। এই তালিকায় তাদের সর্বশেষ  সংযোজন অ্যানিমেটেড সিরিজ লাভ, ডেথ অ্যান্ড রোবটস।

অন্যান্য টিভি সিরিজের তুলনায় এই সিরিজের ফরম্যাটটা একটু আলাদা। সিরিজটি বানানো হয়েছে অ্যান্থলজি ফরম্যাটে। অর্থাৎ এক গুচ্ছ অ্যানিমেটেড গল্প নিয়ে বানানো এই সিরিজ, এবং সিরিজের একটি পর্বের কাহিনীর সাথে অন্য পর্বের কাহিনীর কোন যোগসাজশ নেই।

সিরিজটির প্রথম সিজনে রয়েছে ১৮টি পর্ব।  একেক পর্বের দৈর্ঘ্যও একেক রকম। ৫-১৭ মিনিট দৈর্ঘ্যের পর্বগুলার প্রতিটিই ভিন্ন ভিন্ন কাহিনী, এবং প্রতিটি কাহিনীই একদম ইউনিক।

চলুন তাহলে এবার সংক্ষেপে এই ১৮টি পর্বের মধ্য থেকে কয়েকটির ব্যাপারে জেনে নেয়া যাক।

কাহিনী সংক্ষেপঃ

১) সনি’স এজঃ

সনি, একজন সাহসী, নির্ভিক তরুণী। আন্ডারগ্রাউন্ড ফাইটিং রিং এর নিয়মিত ফাইটার সনি সব ফাইটারদের কাছে এক ত্রাসের নাম। যত কঠিন লড়াইই হোক না ক্যান, দিনশেষে সনিই বিজয়ী হয়, এতটাই ভালো ফাইটার সে।

একদিন এক লোক এসে তাকে তার পরবর্তী ম্যাচে ইচ্ছাকৃতভাবে হেরে যাওয়ার প্রস্তাব দেয়। বিনিময়ে সনিকে দেয়া হবে কাড়ি কাড়ি টাকা।

সনি কি তার এই স্তাব প্রস্তাব গ্রহণ করবে?

সনি’স এজ পর্বের একটি দৃশ্য; Image Source: imdb.com

২) থ্রি রোবটসঃ

সুদূর ভবিষ্যতের কোন এক দিন। পৃথিবী থেকে মানবতা বিলুপ্ত হয়েছে। টিকে আছে শুধু রোবটরা।

এমনই ৩টি রোবট হেঁটে যাচ্ছে কোন এক ধ্বংসপ্রাপ্ত শহরের মধ্য দিয়ে। হাঁটতে হাঁটতে তারা সেই বিলুপ্ত মানুষদের ব্যবহার করা বিভিন্ন জিনিসের ধ্বংসাবশেষ দেখছে আর সে নিয়ে নিজেদের মধ্যে হাসি-ঠাট্টা করছে। এরকম সেকেলে জিনিসপত্র নিয়ে তারা এতদিন কিভাবে বেঁচে ছিল?

এমন সময়, তাদের সামনে পড়ে একটি বিড়াল। বিড়ালটি দেখে তার অবাক হয়ে যায়, এটা আবার কেমন প্রাণী?

বিড়াল দেখে হতবাক তিন রোবট; Image Source: imdb.com

৩) দ্য উইটনেসঃ

নিজের ঘরের আয়নার দিকে তাকিয়ে সাজগোজ করছে একটি মেয়ে। হঠাৎ করে অদ্ভুত একটি শব্দ শুনে সে চমকে ওঠে। নিজের মনের ভুল ভেবে আবার আয়নার দিকে তাকায়। এরপর আবার সেই একই শব্দ শুনতে পায়।

কি মনে করে যেন সে জানালা দিয়ে বাইরে তাকায়। হঠাৎ দেখতে পায়, রাস্তার ওপারের একটি দালানের ভেতর একটি ছেলে, রক্তাক্ত অবস্থায় হাতে বন্দুক নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। আর মাটিতে পড়ে আছে একটি মেয়ের মরদেহ। এমন সময় ছেলেটিও তার দিকে তাকায়। ভয়ের চোটে মেয়েটি তার ঘর থেকে পড়িমরি করে পালাতে চেষ্টা করে।

মেয়েটি কি পারবে সেই খুনির হাত থেকে বাঁচতে?

খুনির হাত থেকে পালিয়ে বেড়াচ্ছে মেয়েটি; Image Source: imdb.com

৪) স্যুটসঃ

মানবচালিত যান্ত্রিক রোবটের সাহায্যে নিজেদের ক্ষেতের ফসলকে কীটপতঙ্গের হাত থেকে রক্ষা করছে একদল কৃষক। এক রাতে হঠাৎ করেই বিশাল বিশাল ভিনগ্রহী প্রাণী তাদের আক্রমণ করা শুরু করে।

তারা কি পারবে এসব প্রাণীদের হাত থেকে বাঁচতে?

এলিয়েনদের আক্রমণ থেকে বাঁচার আপ্রাণ লড়াই; Image Source: imdb.com


৫) সাকার অফ সৌলসঃ

অনেক বছরের পুরনো একটি দুর্গের ধ্বংসাবশেষ পর্যবেক্ষণ করছে একটি প্রত্নতাত্ত্বিক দল। মাটির নিচের সুড়ঙ্গপথ ধরে হাঁটতে হাঁটতে সেই দুর্গ নিয়ে বিভিন্ন গুজবের গল্প শুনছে তারা। এরই মধ্যে একটি হচ্ছে সেখানকার এক ভয়ংকর দৈত্যের গল্প।

হঠাৎ করেই তাদের সামনে এসে হাজির হয় সেই দৈত্য। তারা কি পারবে সেটার হাত থেকে বেঁচে ফিরতে?

সুড়ঙ্গপথে আটকা প্রত্নতাত্ত্বিক দল; Image Source: imdb.com

৬) ওয়েন দ্য ইয়োগার্ট টুক ওভারঃ

বিজ্ঞানীদের দ্বারা উদ্ভাবিত এক বিশেষ প্রকারের পুষ্টিকর ইয়োগার্ট হঠাৎ করেই কথা বলে ওঠা শুরু করে। সেই বিজ্ঞানীরা তার আদেশ অনুযায়ী সব কাজ কারবার করা শুরু করে। সেই বিজ্ঞানীদের থেকে শুরু করে একে একে সবাইকে নিজের দখলে নিয়ে আসতে থাকে সেই ইয়োগার্ট।

কথা বলা ইয়োগার্ট দেখে হতবাক বিজ্ঞানীরা; Image Source: imdb.com

৭) বিয়ন্ড আকিলা রিফটঃ

মহাশূন্যে অবস্থিত আকিলা রিফট নামক এক জায়গার উদ্দেশ্যে অভিযানে বেরিয়েছে একদল মহাশূন্যচারী। মাঝপথে যান্ত্রিক গোলযোগের কারণে তারা পথভ্রষ্ট হয়ে কোন এক অজানা পথে হারিয়ে যায়। এক পর্যায়ে অজ্ঞান হয়ে পড়া মহাশূন্যচারীরা জ্ঞান ফেরার পর তাদের হারিয়ে যাওয়া এক সহকর্মীর দেখা পান। সেই থেকে বেরিয়ে আসে অনেক অপ্রিয় সত্য।

বিয়ন্ড আকিলা রিফট পর্বভের একটি দৃশ্য; Image Source: imdb.com

পরিচালনা ও প্রযোজনাঃ

সিরিজটির পরিচালনা ও প্রযোজনায় রয়েছেন হলিউডের বাঘা বাঘা কিছু নির্মাতারা। পরিচালনায় আছেন জনপ্রিয় সুপারহিরো মুভি ডেডপুলের পরিচালক টিম মিলার। প্রযোজনায় আছেন ফাইট ক্লাব, সেভেন, গন গার্ল  ইত্যাদি জনপ্রিয় মুভির পরিচালক ডেভিড ফিঞ্চার সহ আরও অনেকে।

১৯৮১ সালের জনপ্রিয় সাই-ফাই অ্যানিমেটেড মুভি “হেভি মেটাল” থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে বানানো এই সিরিজ।

চিত্রনাট্য ও অ্যানিমেশনঃ

১৮টি পর্বের প্রতিটিই ভিন্ন ভিন্ন লেখকের বই অনুসারে বানানো। প্রত্যেক পর্বের কাস্ট এবং ক্রুও আলাদা।

ভিন্ন ভিন্ন অ্যানিমেশন স্টুডিও দ্বারা একেকটি পর্বের অ্যানিমেশনের কাজ করা হয়েছে। এবং প্রতিটি পর্বের অ্যানিমেশনই ছিল চোখ ধাঁধানো।

তবে অ্যানিমেশন হলেও, ভায়োলেন্স আর ন্যুডিটির কমতি ছিলনা।

মুক্তি এবং রেটিং:

১৫ মার্চ,২০১৯ তারিখে অনলাইন স্ট্রিমিং প্লাটফর্ম নেটফ্লিক্সে সিরিজটির প্রথম সিজন মুক্তি পায়। মুক্তির পরপরই সমালোচক এবং সাধারণ দর্শক, সবারই মন জয় করে নেয় সিরিজটি।

সিরিজটির আই এম ডি বি রেটিং ৮.৮, এবং রটেন টম্যাটোস রেটিং ৭৫%।

অ্যানিমেশন প্রেমীরা, এখনও সিরিজটি না দেখে থাকলে দেখে ফেলুন!

Related Article

0 Comments

Leave a Comment