আলাদিনের গল্প জানে না কিংবা শোনে নাই এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। আমাদের ছোটবেলার সবচেয়ে বেশী শোনা রূপকথাই বোধহয় আলাদিন। ১৯৯২ সালে ডিজনী থেকে বের হওয়া এনিমেটেড ক্লাসিক আলাদিন মুভি তো আছেই, বাংলাদেশের নব্বই দশকের ছেলে মেয়েরা ‘মিনার তিনটি ইচ্ছা’ কার্টুনে আলাদিনের কথা শুনে শুনে আলাদিনের জাদুর প্রদীপ, প্রধীপের দৈত্য আর জাদুর পাঁটির সাথে আরো বেশিই পরিচিত।

আলাদিন মুভির একটি পোস্টার ; Image Source: popzara.com

সেই আলাদিনকে ডিজনী যখন আবার নতুন করে পর্দায় নিযে আসার ঘোষণা দিলো, তখন সবাই একটু নড়েচড়ে বসেছিল, বলাই বাহুল্য। আর সাথে উইল স্মিথের মতো অভিনেতা যখন দৈত্যের চরিত্রে অভিনয় করেছে, তখন আগ্রহটা আরেকটু বেশী থাকাই স্বাভাবিক। কেমন ছিল নতুন এই আলাদিন , কেমন ছিল ছোটবেলা থেকে ঘুরে আসার সে জার্নি, সেই গল্প বলতেই বসা আজ,

কাহিনী সংক্ষেপ

আলাদিন এক সহজ সরল দরিদ্র যুবক যার একমাত্র সঙ্গী একটি বানর, যে ভীষণ চুরিতে পারদর্শী। তবে চুরি করে বলেই নাক শিটকানোর কিছু নেই। আলাদিনের স্বভাব চরিত্র কিছুটা রবিন হুড ক্যাটাগরির, অর্থাৎ চুরির পয়সা দিয়ে কেনা খাবার প্রায়ই গরীবদের দিয়ে দেয়। আর বাজারে ঘুরতে ঘুরতেই একদিন দেখা হয়ে যায় গ্রাম্য মেয়ের ছদ্মবেশে ঘুরতে আসা প্রিন্সেস জেসমিনের সাথে।

আলাদিন মুভিতে অভিনয় করেছে বানরটিও ; Image Source: movieweb.con

সেখানেই দুজনের পরিচয়, সারাদিন একসাথে ঘুরে বেড়ানো আর সন্ধায় রাজপ্রাসাদে ফেরার পর আলাদিন যখন লুকিয়ে রাজকন্যার সাথে দেখা করতে যায়, তখন থেকেই মূল ঘটনার শুরু।

আলাদিন এবং রাজকন্যা জেসমিন ; Image Source: stylecaster.com

রাজার সহচর জাফরের চক্রান্তে আলাদিন গিয়ে বন্দী হয় এক গুহায়। তবে এ বন্দী হওয়া তার জন্য শাপে বর হয়ে দাঁড়ায়। সে উদ্ধার করে ম্যাজিক কা্র্পেট এবং ম্যাজিক ল্যাম্প।

জিনি’র চরিত্রে আর সবাইকে ছাপিয়ে গেছেন উইল স্মিথ ; Image Source: youtube.com

ম্যাজিক ল্যাম্পের দৈত্য যে নিজেকে জিনি নামে পরিচয় দিতে বেশী পছন্দ করে, তার সহায়তায়ই গুহার বন্দি অবস্থা থেকে বের হয়ে আসে আলাদিন এবং ছদ্মবেশ ধারণ করে এক রাজপুত্রের, যাতে সে রাজপ্রাসাদে ঢুকে রাজকন্যাকে ইমপ্রেস করতে পারে।

আর একই সাথে শয়তান জাফরে হাত থেকে রাজা, রাজকন্যা এবং রাজ্য বাঁচানোর মহান দায়িত্ব তো আছেই। আলাদিনের সাথে রয়েছে তার সর্বসময়ের সাথী বানর এবং ম্যাজিক ল্যাম্পের জিনি।

সময়ের পরিক্রমায় অবশ্য ম্যাজিক ল্যাম্প দুষ্ট জাফরের কাছে হারিয়ে বিপদে পড়ে আলাদিন। শুধু আলাদিন একা না, এতে বিপদে পড়ে রাজা, রাজকন্যাও, পুরো রাজ্যে নেমে আসে ঘোর কালো অন্ধকার। এমনকি ম্যাজিক ল্যাম্পের জিনি নিজেও খুশী না এমন দুষ্ট লোকের হাতে বন্দী হয়ে, কিন্তু করার কিছু নেই তারও। ল্যাম্পের দৈত্য হিসেবে তার হাত তো বাঁধা।

আলাদিন কি পারবে দুষ্ট জাফরকে হারিয়ে রাজ্য ও রাজকন্যাকে উদ্ধার করতে? মানুষকে ভালোবাসা আলাদিন কি পারবে দেশকে এমন ঘোর অমানিশা থেকে উদ্ধার করতে? নাকি হেরে যাবে ম্যাজিক ল্যাম্প পেয়ে প্রবল ক্ষমতাশালী হয়ে ওঠা জাফরের কাছে?

ম্যাজিক ল্যাম্পে হাজার বছর ধরে বন্দী হয়ে থাকা জিনিকে মুক্ত করে দেয়ার কথা কি রাখতে পারবে আলাদিন ? নাকি জিনিকে বন্দী হয়ে থাকতে হবে ভয়ংকর জাফরের অধীনে আরো বহুদিন?

রাজকন্যারই বা কী হবে? আলাদিন কি পারবে শেষ পর্যন্ত রাজকন্যাকে নিজের করে পেতে নাকি রাজকন্যার দখল পাবে দুষ্ট জাফরই?

এমন অনেক প্রশ্ন মনে তৈরী হবে সিনেমাটি দেখতে দেখতে, আর উত্তর পেতে দেখতে হবে ডিজনীর তৈরী এই বছরই মুক্তি পাওয়া আলাদিন সিনেমাটি।

অভিনয়

আলাদিন চরিত্রে অভিনয় করেছেন তরুণ সম্ভাবনাময় অভিনেতা মিনা মাসউদ, রাজকন্যা জেসমিন চরিত্রে ছিলেন নাওমী স্কট। তবে সবাইকে চমকে দিয়ে জিনির চরিত্রটি করেছেন শক্তিমান অভিনেতা উইল স্মিথ।

উইল স্মিথের জন্য এ ধরণের চরিত্র অভিনব তাই অনেক চলচিত্র প্রেমীই অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় ছিলেন কেমন করবেন এমন একটি চরিত্রে প্রিয় এই অভিনেতা, তা জানতে!

গল্পের যেসব চরিত্রে যারা ছিলেন ; Image Source: screenrant.com

আর বরাবরের মতোই উইল স্মিথ ছাড়িয়ে গেছেন অন্য সব অভিনেতাকে, তার অভিনয়ের জৌলুসে ঢাকা পড়ে গেছে আলাদিনের মূল চরিত্রে অভিনয় করা মিনা মাসউদও।
এছাড়া জাফর চরিত্রে চমত্কার ছিলেন মারওয়ান কেনজারি।

সঙ্গীত

ডিজনীর মুভিতে মিউজিক সবসময়ই একটি গুরুত্বপূর্ণ জায়গা দখল করে থাকে। প্রয়াত হাওয়ার্ড এ্যাসমেনের লেখা কিছু গান এই মুভিতে ব্যবহৃত হয়েছে যা আগের অর্থাৎ ১৯৯২ সালে মুক্তি পাওয়া মুভিতেও ছিল। এছাড়া নতুন যেসব গান অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে তা লিখেছেন এ্যালান ম্যানকেন।

চিত্রনাট্য ও পরিচালনা

জন অগাস্টোর লেখা চিত্রনাট্যের উপর কলম ঘুরিয়েছেন গে রিচি, নতুন আলাদিন তৈরী করার পূর্বে। ডিজনীর সিনেমাটি পরিচালনাও করেছেন গে রিচি।

রেটিং

আইএমডিবি রেটিং – ৭.৪

রটেন টমেটো – ৫৬%

এ্যাওয়ার্ড

বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় ছয়টি ক্যাটাগরিতে নমিনেটেড হযেছে এ বছরই মুক্তি পাওয়া আলাদিন মুভি।

গোল্ডেন ট্রেইলার এ্যাওয়ার্ডে বেস্ট ব্লকবাস্টার সামার পোস্টারেও নমিনেশন পেয়েছে আলাদিন।

এছাড়া মিনা মাসউদ, উইল স্মিথ, নাওমী স্কট এবং মারওয়ান কেনজারিও ভিন্ন ভিন্ন ক্যাটাগরিতে নমিনেশন পেয়েছেন টিন চয়েস এ্যাওয়ার্ডে।

মুভি হিসেবেও বেস্ট ফ্যান্টাসি মুভির ক্যাটাগরিতে পুরষ্কারের জন্য প্রতিযোগিতা করছে আলাদিন সিনেমাটি।

কেন দেখবেন সিনেমাটি?

জানা গল্প, জানা চরিত্র, জানা সমাপ্তি, তবু কেন দেখবেন সিনেমাটি? কারণ সিনেমাটি দেখবেন আরেকবার ছেলেবেলায় ফেরার তাড়নায়, দু ঘন্টা ষোল মিনিট নস্টালজিয়ায় বুদ হয়ে থাকার নেশায়।

আর কিছু কিছু জায়গা এমন ভাবে বদলে দেয়া হয়েছে আধুনিক দিনের মতো যে দেখে নিজের অজান্তেই হেসে উঠবেন।

হয়তো প্রত্যাশা মাফিক পুরোটা মিলবে না বলে মুভিটি নিয়ে বেশ সমালোচনাও হচ্ছে, তবু নিজের বিচার বিবেচনার সাথে ফেলে আসা ছেলেবেলাকে একবার মিলিয়ে দেখতে বসে যেতেই পারেন একদিন আলাদিনের সাথে।

Related Article

0 Comments

Leave a Comment